সোমবার, ১৭ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

জাতিসংঘের অধীনে নির্বাচন দাবি এবি পার্টির

সরকারের পদত্যাগ ও প্রহসনের নির্বাচন বাতিলের দাবিতে মঙ্গলবার (১২ ডিসেম্বর) রাজধানীতে বিক্ষোভ মিছিল করেছে আমার বাংলাদেশ পার্টি (এবি) পার্টি। মিছিল থেকে আগামী ৭ জানুয়ারির নির্বাচনের নামে প্রহসন বন্ধ করে জাতিসংঘের তত্ত্বাবধানে নির্বাচনের দাবি জানানো হয়। ৭ জানুয়ারি নির্বাচন হলে দেশ আবারও একদলীয় শাসন প্রতিষ্ঠা হবে বলে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন দলটির নেতারা।

সরকারের পদত্যাগ ও প্রহসনের নির্বাচন বাতিলের দাবিতে পূর্বঘোষিত কর্মসূচি হিসেবে আজ বিকেলে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে থেকে মিছিলটি শুরু হয়ে তা কাকরাইল, বিজয়নগর, নয়াপল্টন, সেগুনবাগিচা, পুরানা পল্টনসহ রাজধানীর বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে দলীয় কার্যালয়ের সামনে গিয়ে শেষ হয়।

বিক্ষোভ মিছিল শেষে বিজয়নগরস্থ বিজয়-৭১ চত্বরে সংক্ষিপ্ত সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন দলের যুগ্ম আহ্বায়ক ও ঢাকা মহানগর দক্ষিণের আহবায়ক বিএম নাজমুল হক। সমাবেশে বক্তব্য রাখেন দলের যুগ্ম আহ্বায়ক অ্যাডভোকেট তাজুল ইসলাম, সদস্যসচিব মজিবুর রহমান মঞ্জু ও যুগ্ম সদস্যসচিব ব্যারিস্টার আসাদুজ্জামান ফুয়াদ।

তাজুল ইসলাম বলেন, এই সরকারের পদত্যাগের দাবিতে এবি পার্টি লাগাতার কর্মসূচি পালন করে যাচ্ছে। এখন ক্ষমতাসীনরা বাড়ি বাড়ি গিয়ে পুলিশ দিয়ে তাণ্ডব চালাচ্ছে। পুলিশ বিজিবি আজ পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়েছে। আওয়ামী কালেবাজারি সিন্ডিকেট বাহিনী একদিনে পেঁয়াজসহ দ্রব্যমূল্য বাড়িয়ে জনমনে হাহাকার তৈরি করেছে। আগামী ৭ জানুয়ারির এই প্রহসনের নির্বাচন হতে পারে না, এটা বাংলাদেশের জনগণ হতে দেবে না।

মজিবুর রহমান মঞ্জু বলেন, সরকারের সাজানো নির্বাচন দিনের পর দিন হাসি তামাশার রঙ্গে পরিণত হচ্ছে। এই নির্বাচনে যারা প্রার্থী হয়েছেন তারা সবাই দুর্নীতিবাজ, ডাকাত। দেশের মানুষ চরম আর্থিক সংকটে থাকলেও গত ১৫ বছরে এরা সম্পদের পাহাড় গড়েছেন। ৭১ সালের স্বাধীনতা সংগ্রামে মানুষ দুই ভাগে বিভক্ত ছিল শোষক আর শোষিত। ২০২৩ ও ২৪ সালে এসেও মানুষ আজ দুই ভাগে বিভক্ত হয়ে পড়েছে। একপক্ষ হলো যারা এই সাজানো নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে সেসকল লুটেরা ডাকাত বাহিনী আর অপরপক্ষে আমরা যারা প্রহসনের নির্বাচন বর্জন করে গণতন্ত্রের জন্য লড়াই করছি সেসকল মজলুম বঞ্চিত জনগণ।

ব্যারিস্টার ফুয়াদ বলেন, আজ গণভবনে ঘুরাঘুরি করছে সিট কিংবা অর্থ ভাগাভাগির জন্য। সরকার দালাল সংগ্রহে ব্যর্থ। আওয়ামী লীগ এখন গোটা বাংলাদেশের গ্রামে গ্রামে বয়স্ক ভাতা, ভিজিডি, ভিজিএফ কার্ডের সহায়তা গ্রহণকারী জনগণকে হুমকি দিচ্ছে, তাদেরকে নৌকায় ভোট দিতে হবে।

মিছিল ও সমাবেশে আরও উপস্থিত ছিলেন এবি পার্টির সিনিয়র সহকারী সদস্যসচিব আনোয়ার সাদাত টুটুল, এবি যুবপার্টির আহবায়ক এবিএম খালিদ হাসান, সিনিয়র সহকারী সদস্য সচিব আব্দুল বাসেত মারজান, সহকারী সদস্যসচিব শাহ্ আব্দুর রহমান, যুবপার্টির যুগ্ম সদস্য সচিব হাদিউজ্জামান খোকন, মহানগর দক্ষিণের যুগ্ম আহবায়ক আব্দুল হালিম খোকন, যুগ্ম সদস্যসচিব সফিউল বাসার, কেফায়েত হোসেন তানভীর, ছাত্রপক্ষের আহবায়ক মোহাম্মদ প্রিন্স, মহানগর দক্ষিণের সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল হালিম নান্নু কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য সেলিম খান, রুনা হোসাইন, সুমাইয়া শারমিন ফারহানা, মশিউর রহমান মিলু, শাহীনুর আকতার শীলা, মাহমুদ আজাদ সহ কেন্দ্রীয় ও মহানগরীর বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ।

শেয়ার করুনঃ

সর্বশেষ

বিজ্ঞাপন

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০  

All Rights Reserved ©2024