রবিবার, ২৩শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

সিলেটে সাংবাদিককে অপহরণের চেষ্টা, গ্রেপ্তার দুজনকে রিমান্ডের আবেদন

সিলেট প্রতিনিধিঃ সিলেটে অপহরণকারীদের হাত থেকে অল্পের জন্য রক্ষা পেলেন এনটিভির স্টাফ করেসপন্ডেন্ট মারুফ আহমদ।

সোমবার (২১ মার্চ) রাত ৮টার দিকে সিলেট নগরীর জিন্দাবাজার ব্ল-ওয়ার্টার ভবনের পার্কিংয়ে ঘটে এ ঘটনা। এ ঘটনায় দুজন আসামিকে গ্রেপ্তার করে আজ (মঙ্গলবার) ৫ দিনের রিমান্ডের আবেদন করেছে পুলিশ। বুধবার রিমান্ড শুনানি অনুষ্ঠিত হবে।

সোমবার গভীর রাতে কোতোয়ালি থানার ওসির নেতৃত্বে এসআই অঞ্জন দেব নাথ সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে হামলাকারী দুজনকে গ্রেপ্তার করেন। অপর অজ্ঞাত আসামিকে গ্রেপ্তারে অভিযান চলাচ্ছে পুলিশ।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন- সিলেটের জালালাবাদ থানাধীন টুকেরবাজারের মইয়ারচর গ্রামের তজম্মুল আলীর ছেলে শামীম আহমদ ও একই গ্রামের মোক্তার আলীর ছেলে সোহেল রানা।

সাংবাদিক মারুফ ইলেকট্রনিক মিডিয়া জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশন (ইমজা) সিলেটের সাধারণ সম্পাদক মারুফ আহমদ। সোমবার অপহরণের চেষ্টার সময় ওই ভবনের গ্যারেজের নিরাপত্তাকর্মীরা এসে তাঁকে উদ্ধার করেন। এসময় মারুফকে মারধর করে নগদ অর্থ ও জরুরি কাগজপত্র ছিনিয়ে নিয়ে যায় অপহরণের চেষ্টাকারীরা। একই সঙ্গে দেওয়া হয় হত্যার হুমকি।

এ ঘটনায় আহত মারুফকে প্রাথমিক চিকিৎসার জন্য সিলেটের ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়। পরে কোতোয়ালি মডেল থানায় মামলা করেন তিনি।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা গেছে, নগরীর জিন্দাবাজারস্থ ব্লু-ওয়ার্টার শপিং মলের আন্ডারগ্রাউন্ডে মোটরসাইকেল পার্কিং করার সময় হঠাৎ করে তিন যুবক মারুফের ওপর হামলা করেন। একই সঙ্গে তাঁরা অপহরণের চেষ্টা চালান। এ সময় তাঁর চিৎকারে আশপাশের লোকজন এসে তাকে উদ্ধার করেন।

হামলার পুরো ঘটনা ব্লু-ওয়াটার মার্কেটের সিসিটিভির ক্যামেরায় ধরা পড়েছে। সেখানে স্পষ্ট দেখা যায় অপহরণকারীদের কর্মকাণ্ড। সিসিটিভি ফুটেজে নেভি ব্লু রঙের টিশার্ট পরা একজনকে দেখা যায়।

সাংবাদিক মারুফ বলেন, ‘লোকজন এগিয়ে আসলে ওই তিন যুবক আমার মানিব্যাগ, নগদ সাতানব্বই হাজার টাকা ও জরুরি কাগজপত্র ছিনিয়ে নিয়ে যায়। যাবার সময় আমাকে সুযোগে পেলে প্রাণে মেরে ফেলবে বলেও হুমকি দেয়।’
মামলার তদন্ত কর্মকর্তা কোতোয়ালি মডেল থানার এসআই নাজমুল ইসলাম জানান, গ্রেপ্তারকৃত আসামিদের আদালতে চালান দেওয়া হয়েছে। তাদেরকে জ্ঞিাসাবাদের জন্য ৫ দিনের রিমান্ডের আবেদন করা হয়েছে।’

এ ব্যাপারে সিলেট কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ আলী মাহমুদ বলেন, ‘হামলার খবর পেয়ে পুলিশ পাঠানো হয়। মামলার প্রেক্ষিতে দুই আসামিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। একজন পলাতক আছে। তাঁকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।’

এদিকে, এ ঘটনায় তীব্র প্রতিবাদ ও সব আসামিদের দ্রুত আইনের আওতায় এনে বিচারের দাবি করেছেন ইলেকট্রনিকস মিডিয়া জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশন (ইমজার) সিলেট।
সংগঠনের সহসভাপতি দিগেন সিংহ বলেন, ‘এই হামলার পেছনে অনেক কারণ থাকতে পারে। সেটি খতিয়ে দেখা উচিৎ বলে মনে করছি। এর পেছনে আর কারা আছে, তা খুঁজে বের করতে হবে।’ সুত্রঃ ভয়েস অফ সিলেট

শেয়ার করুনঃ

সর্বশেষ

বিজ্ঞাপন

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০  

All Rights Reserved ©2024