শুক্রবার, ১৯শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

২৪ দিনে পাকিস্তানে ৩৬ শিশুর মৃত্যু

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ পাকিস্তানের দক্ষিণপূর্বাঞ্চলীয় প্রদেশ সিন্ধুতে চলতি জানুয়ারির শুরু থেকে এ পর্যন্ত অন্তত ৩৬ জন শিশু ও নবজাতকের মৃত্যু হয়েছে। দেশটির জাতীয় দৈনিক দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউনের বরাত দিয়ে এক প্রতিবেদেন এ তথ্য জানিয়েছে ভারতের সংবাদমাধ্যম টাইমস অব ইন্ডিয়া।

সিন্ধু প্রদেশের বৃহত্তম জেলা থরপার্কার ও তার আশপাশের এলাকাগুলোতে গত ২৪ দিনে ঘটেছে এসব মৃত্যু। অপরিণত বয়সে মাতৃত্ব ও এই বিষয়ক নানা জটিলতা, বিভিন্ন রোগশোক ও আবহাওয়াগত প্রভাব, দারিদ্র্য ও সচেতনতার অভাবকে শিশু ও নবজাতকদের অকাল মৃত্যুর জন্য দায়ী করেছেন সিন্ধুর প্রাদেশিক স্বাস্থ্য সেবা দফতরের উপ মহাপরিচালক ডা. ইরশাদ মেমন।

দ্যা এক্সপ্রেস ট্রিবিউনকে এ সম্পর্কে ডা. মেমন বলেন, ‘ওই এলাকায় যেসব দম্পতির ১০ বা তারও বেশি সন্তান আছে, সেই পরিবারগুলোতেই ঘটেছে অধিকাংশ মৃত্যু।’

‘আপাতভাবে মনে হতে পারে, বিভিন্ন রোগশোক ও অপুষ্টিতে ভুগেই অকালমৃত্যু হয়েছে এসব শিশু ও নবজাতকের। তবে এগুলো সরাসরি কারণ হলেও বেশকিছু প্রভাবক এই উল্লেখযোগ্য পরিমাণ মৃত্যুর জন্য দায়ী।’

‘যেমন- প্রদেশের ওই অঞ্চলটিতে স্বাস্থ্যসেবা ব্যবস্থা অবকাঠামোগতভাবেই দুর্বল, যার মূল শিকার নারী ও শিশুরা। এছাড়া দারিদ্র্য, কুসংস্কার, ও চরমভাবাপন্ন জলবায়ুও গুরুত্বপূর্ণ প্রভাবক।’

প্রাদেশিক স্বাস্থ্যসেবা দফতরের বিবৃতিতে বলা হয়, গত ২৪ দিনে থরপার্কার জেলার মিঠি এলাকায় ৮, ইসলামকোটে ৭, ডিপলোতে ৬, চাচরোতে ৩, নাগারপার্কারে ৭ এবং জেলার আশপাশের কয়েকটি এলাকায় ৫- মোট ৩৬ শিশু ও নবজাতকের মৃত্যু হয়েছে।

দফতরের বিবৃতিতে অপরিণত বয়সে মাতৃত্ব ও এই তার ফলে দুর্বল শিশু প্রসবকে এই শিশুমৃত্যুর কারণ হিসেবে গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি পুষ্টিহীনতা, রক্ত স্বল্পতা, নিউমোনিয়া, হাম, শ্বাসতন্ত্রের সংক্রমণের পাশাপাশি আবহাওয়াগত প্রভাব, দারিদ্র্য, স্বাস্থ্যসেবার অপ্রতুলতা ও সচেতনতার অভাবকেও মৃত্যুর জন্য দায়ী করা করেছে স্বাস্থ্যসেবা দফতর।

পাকিস্তানের সিন্ধু প্রদেশের এই এলাকাটি দীর্ঘদিন ধরেই উপেক্ষিত এবং অবহেলিত। দেশটির যেসব এলাকা স্বাস্থ্যসেবা, পরিষ্কারপরিচ্ছন্নতা ও পুষ্টিগত দিক থেকে সবচেয়ে পিছিয়ে আছে সেসবের মধ্যে অন্যতম থরপার্কার ও তার আশপাশের এলাকাগুলো।

এর পাশাপাশি শিশুমৃত্যুর হারও দীর্ঘকালীন সমস্যা থরপার্কার ও তার আশপাশের জেলাগুলোতে। গত বছর ২০২১ সালে সিন্ধুর থরপার্কার ও তার আশপাশের কয়েকটি জেলায় মৃত্যু হয়েছিল ৬০০ শিশুর। তার আগের বছর ২০২০ সালে ওই এলকায় মারা গিয়েছিল ৫০০ শিশু।

শেয়ার করুনঃ

সর্বশেষ

বিজ্ঞাপন

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২
১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
২০২১২২২৩২৪২৫২৬
২৭২৮২৯৩০৩১  

All Rights Reserved ©2024