বুধবার, ২১শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

৫৫৭ মনোনয়ন ফরম বিক্রির পর চুন্নুর দাবি, ভোটের চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হয়নি

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে যাওয়ার আনুষ্ঠানিক ঘোষণা না দিলেও মনোনয়ন ফরম বিক্রিসহ সব ধরণের কাজ করছে জাতীয় পার্টি (জাপা)। প্রথম দিনে (সোমবার) দলটির শীর্ষ নেতাসহ ৫৫৭জন প্রার্থী হতে আগ্রহী নেতার কাছে মনোনয়ন ফরম বিক্রি করেছে দলটি। তবে দিনশেষে জাপা মহাসচিব মো. মুজিবুল হক চুন্নু সাংবাদিকদের বলেছেন, আমরা নির্বাচনে যাওয়ার প্রাথমিক কাজ শুরু করেছি। এটি নির্বাচনে যাওয়ার চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নয়। জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ কাদের (জিএম কাদের) নির্বাচনের ব্যাপারে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবেন। শিগগিরই সিদ্ধান্ত তিনি জানাবেন।

সোমবার (২০ নভেম্বর) দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে মনোনয়ন ফরম বিক্রি শুরু করে জাতীয় পার্টি। সোমবার বেলা সাড়ে ১১টায় জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যানের বনানী কার্যালয়ে মনোনয়ন ফরম বিক্রির উদ্বোধন করেন জাতীয় পার্টির সিনিয়র কো-চেয়ারম্যান ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদ।

এ সময় জাতীয় পার্টির মহাসচিব মো. মুজিবুল হক চুন্নু, কো-চেয়ারম্যান এবিএম রুহুল আমিন হাওলাদার, কাজী ফিরোজ রশীদ,  সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা, অ্যাডভোকেট সালমা ইসলামসহ জাতীয় পার্টির সিনিয়র নেতৃবৃন্দ উপস্থিত থেকে মনোনয়ন ফরম গ্রহণ করেন।

জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য অ্যাডভোকেট রেজাউল ইসলাম ভূইয়া আনুষ্ঠানিকভাবে পার্টির সিনিয়র নেতৃবৃন্দের হাতে মনোনয়ন ফরম তুলে দেন।

প্রথম দিনে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ কাদের এমপিও মনোনয়ন ফরম গ্রহণ করেছেন। মনোনয়ন ফরম বিতরণের প্রথম দিনে মোট ৫৫৭টি ফরম ক্রয় করেছেন নির্বাচনে অংশ নিতে আগ্রহী নেতাকর্মীরা।

পরে জাপা মহাসচিব বলেন, জাতীয় পার্টি নির্বাচনমুখী দল। আমরা আশা করেছিলাম আনন্দমুখর পরিবেশে নির্বাচন হবে। দেশের মানুষ স্বতঃস্ফূর্তভাবে সেই নির্বাচনে ভোট দিতে পারবে। আমরা নির্বাচনে যাওয়ার প্রাথমিক কাজ শুরু করেছি। এটি নির্বাচনে যাওয়ার চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নয়। আমরা সংশ্লিষ্টদের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি, নির্বাচনে যেন সাধারণ ভোটাররা শান্তিপূর্ণ পরিবেশে ভোট দিতে পারে সেই পরিবেশ সৃষ্টি করুন। নির্বাচনে আমরা আস্থার পরিবেশ চাই। জাতীয় পার্টির সকল পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ পার্টি চেয়ারম্যানকে দায়িত্ব দিয়েছেন।

চুন্নু বলেন, চেয়ারম্যান প্রয়োজন মনে করলে, সিনিয়র নেতাদের সঙ্গে আবারও আলোচনা করতে পারেন। নির্বাচনের প্রস্তুতি আমাদের আছে, পার্টি চেয়ারম্যান শিগগিরই নির্বাচনের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত জানাবেন।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ২০০৮ সালে শুধু আমরা মহাজোটের অংশ হিসেবে নির্বাচনে অংশ নেই। ২০১৪ ও ২০১৮ সালের নির্বাচনে আওয়ামী লীগের সঙ্গে আমাদের আসনভিত্তিক নির্বাচনী সমঝোতা ছিল। এখন জাতীয় পার্টি কোনো জোটের সঙ্গে নেই। আমরা তিনশো আসনেই আমাদের নিজস্ব প্রতীক নিয়ে নির্বাচনের প্রস্তুতি নিচ্ছি।

তিনি আরও বলেন, জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান বারবার বলেছেন, সকল দলের সঙ্গে আলোচনা করুন। সবাই এক টেবিলে বসলে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান একটি ফর্মুলা দিতে পারতেন। যাতে সংবিধানের আওতায় একটি সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব।

প্রথম দিনে সিনিয়র নেতাদের মধ্যে প্রেসিডিয়াম সদস্য নাসরিন জাহান রতনা, ব্যারিস্টার শামীম হায়দার পাটোয়ারী, রানা মোহাম্মদ সোহেল (অব.), আতিকুর রহমান আতিক, জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যানের উপদেষ্টা শেরীফা কাদের, নুরুল ইসলাম তালুকদার, ভাইস চেয়ারম্যান আহসান আদেলুর রহমান মনোনয়ন ফরম কিনেছেন।

শেয়ার করুনঃ

সর্বশেষ

বিজ্ঞাপন

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯  

All Rights Reserved ©2024