“অন্যের পাপ গোপন রাখা শ্রেয়”

লেখক: জাহিদ হাসান আবেদ।

লজ্জা আর অপমানের ভয় অনেকসময় মানুষকে অনেক খারাপ কাজ করা যেমন মিথ্যা বলা,চুরি,ডাকাতি ইত্যাদি থেকে বিরত রাখে।হতে পারে এই ভয়টাই একদিন তাকে আল্লাহ্‌র দিকে নিয়ে যাবে, যখন সে তার ভুল বুঝতে পারবে এবং তার কৃত অপরাধের জন্য আল্লাহ্‌র কাছে ক্ষমা চাইবে।কিন্তু যখন তার অপরাধ জনসমক্ষে প্রকাশ করে দেওয়া হয় তখন সেই ভয়টা আর তার মাঝে কাজ করে না।সে তখন ভাবতে থাকে, ‘কি হবে আর ভাল থেকে, ক্ষতি যা হবার তা তো হয়েই গেছে, লোকজন তো জেনেই গেছে ইতোমধ্যে’, তখন সে প্রাকাশ্যে পাপ কাজে লিপ্ত হতে থাকবে।চলার পথে আমাদের বিভিন্ন মানুষের সঙ্গে পরিচয় হয়।সবার ভেতরে কমবেশি দোষ ও গুণ থাকে।অনেক সময় এসব দোষের কারণে মানুষের ভেতর ভুল-বোঝাবুঝির সৃষ্টি হয়।সেটা ব্যাপক আকার ধারণ করে।এতে করে মানুষের ভেতর দূরত্ব সৃষ্টি হয়, সেটা যেকোনো সম্পর্কের ক্ষেত্রেই হতে পারে।বারবার পাপের কথা বলতে থাকলে মানুষের অন্তর থেকে পাপের ভয় দূর হয়ে যায়।তখন পাপকে আর পাপ বলে মনেই হয়না।যে পাপের কথা বলে বেড়াতে লজ্জাবোধ করেনা, একই পাপে লিপ্ত হওয়া তার জন্য অসম্ভব কিছু নয়।আর এভাবেই সমাজে পাপ ছড়িয়ে পড়তে থাকে!তাই আমাদের উচিত কাউকে পাপ করতে দেখলে তা গোপন রাখা।কারন একজনের পাপ প্রকাশ করে দিয়ে তাকে পাপের দিকে ঠেলে দেওয়া মহৎ কাজ নয়।ধ্বংসের দিকে নিয়ে যায় এমন সকল পথ পরিহার করে চলতে পারি আমরা।বিরত থাকি নিজের বা অপরের দোষ প্রচার করা থেকে।যেকোনো ক্ষেত্রেই নিজে এই ব্যাপারটা অনুভব করতে হবে যে ভুলত্রুটি যে কারও হতে পারে।পানাহ্‌ চাই আল্লাহ্‌র কাছে, আল্লাহ্ যেন আমাদের সকলকে এমন ঘৃণিত অপরাধ থেকে দূরে সরিয়ে রাখেন।