নৌকাডুবি

কবিঃ কাজী হাবিবুর রহমান

রোদ হাসে ফিকফিক বালুচরে ঝিকমিক
নদে এক তরী বয়ে যায়।
ছেলে-মেয়ে গোটাছয় সাহেব-বিবি,মাঝি নয়-
জন নিয়ে তরীটি উজায়।
স্তব্ধ সমিরণ গগনেতে সারাক্ষণ
কিসের এক নিরবতা যেন,
দূর-গাঁয়ে গাছ-পালা নেই কোন ঝালাপালা,
থির হয়ে আছে যেন কেনো।
আচানক আকাশেতে কালোঘন ওঠে মেতে
ভয়াবহরূপ নিয়ে, বায়
ছিল বুঝি তন্দ্রাতে, জেগে দেখে দূরপথে
যেতে হবে বেলা বয়ে যায়।
তাইবুঝি তড়িঘড়ি উঠে পড়ে ঘুম ছাড়ি
দৌড়াদৌড়ি করে সে ছোটে,
পথিমধ্যে যা কিছু ফেলেদিয়ে সে পিছু,
দলেদিয়ে যায় যে টুটে।
লহড়ি-হিন্দোলে তরী সহসা জলেতে ভরি
নদী বুকে হয় যে বিলীন,
ছেলে-মেয়ে ডুবে যায় পিতা-মাতা হায়হায়,
খুঁজে নাহি পায় কোন চিন।
মাতা-পিতা শোকাহত এ ভূবনে ব্যথা যত
দু’জনার বুকে বাঁধে বাসা,
মাঝি কাঁদে তরী তরে কী উপায়ে আয় করে,
ছেলে-মেয়ে বাঁচাবে সে খাসা।
সাহেবের সন্তানেরা মরে যে মরেছে তারা
মাঝির যে বেঁচেও মরা,
ছদ্মবেশে চুপেচুপে বহুবুকে বহুরূপে
ব্যথা হয়ে নাচিছে ধরা।