ডেট্রয়েট চিড়িয়াখানার প্রাণীদেরও দেওয়া হচ্ছে করোনার টিকা

বিশ্বের সব দেশেই থাবা বসিয়েছে কোভিড -১৯।বিভিন্ন দেশে প্রাণীদের রক্ষা করতে আপ্রাণ চেষ্টা চালানো হচ্ছে।প্রাণীদের করোনাভাইরাস থেকে সুরক্ষা দিতে যুক্তরাষ্ট্রের মিশিগান রাজ্যের ডেট্রয়েট চিড়িয়াখানায় টিকা দেয়া শুরু হয়েছে।ডেট্রয়েট চিড়িয়াখানার কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, গরিলা, শিম্পাঞ্জি, বাঘ এবং সিংহই প্রথম টিকা পেয়েছে।এই টিকা তৈরি করেছে নিউ জার্সির একটি সংস্থা জোয়েটিস।এরা পশুদের জন্য ওষুধ তৈরি করে।ডেট্রয়েট জুলজিক্যাল সোসাইটির পশু স্বাস্থ্যের পরিচালক অ্যান ডানকান এক বিবৃতিতে বলেছেন, “কোনো প্রাণীর কোভিড -১৯ পরীক্ষা ইতিবাচক ছিল না।তবে চিড়িয়াখানাটি আগাম সাবধানতা অবলম্বন করছে।চিড়িয়াখানার কর্মীরা পশুদের থেকে নিরাপদ দূরত্ব বজায় রাখে এবং ব্যক্তিগত সুরক্ষা সরঞ্জাম (পিপিই) পরে।অনেকটা যেমন আমরা পারভোভাইরাস, ডিস্টেম্পার বা জলাতঙ্ক রোগের জন্য কুকুরকে টিকা দিই,তাই এই টিকাও চিড়িয়াখানায় প্রাণীদের সুরক্ষার জন্য প্রয়োজন।”ডেট্রয়েট জুলজিক্যাল সোসাইটির প্রধান জীবন বিজ্ঞান কর্মকর্তা স্কট কার্টার এক বিবৃতিতে বলেন, “আমরা আনন্দিত, কারণ আমরা টিকা দিয়ে প্রাণীদের আরও সুরক্ষা দিতে পারব।”যুক্তরাষ্ট্র নিউ জার্সিতে অবস্থিত জোয়েটিস পোষা প্রাণী এবং গবাদি পশুর জন্য বিশ্বের সবচেয়ে বড় ওষুধ ও টিকা উৎপাদনকারী।এর গবেষণা ও উন্নয়ন দলের সদর দপ্তর কালামাজুতে।সংস্থাটি ৭০ টি চিড়িয়াখানার পাশাপাশি ২৭ টি রাজ্যের এক ডজনেরও বেশি সংরক্ষণাগার, অভয়ারণ্য এবং অন্যান্য সংস্থাকে ১১ হাজারের বেশি ডোজ টিকা দান করছে।ওষুধ প্রস্তুতকারকের মুখপাত্রের মতে, ২০১৩ সাল পর্যন্ত জোয়েটিস ফাইজারের অংশ ছিল।

উল্লেখ্য শুধুমাত্র যে মানুষ করোনায় আক্রান্ত হচ্ছেন এমনটা মোটেও না।এখন পর্যন্ত গরিলা, বাঘ, সিংহ, পোষা বিড়াল এবং কুকুরের দেহেও করোনা সংক্রমণ ঘটেছে।আর সেই কারণেই আগে থেকে সতর্ক হয়ে প্রণীদের টিকা দিচ্ছে ডেট্রয়েট চিড়িয়াখানা।